৪৭৪ কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত আলীকদম-পোয়ামুহুরী সড়কঃ একদিনের পথ ১ ঘন্টায় পার

277

মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, বান্দরবানঃ-চারিদিকে সবুজ অরণ্যে ঘেরা পার্বত্য জেলা বান্দরবান। প্রকৃতি এই অপরূপ সৌন্দর্যের কারণে দেশী-বিদেশী পর্যটকদের কাছে ব্যাপক আকৃষ্ট করে তুলেছে এই জেলাটি। এক সময় যোগাযোগ স্থাপনের মাধ্যম বিশেষ করে বান্দরবানে সীমান্তবর্তী সড়কে আলীকদম-পোয়ামুহুরী যোগাযোগ ব্যবস্থাও ছিল অতি দুর্বল। সম্প্রীতি আলীকদম-জালানিপাড়া-কুরুকপাতা পোয়ামুহুরী সড়ক নির্মাণের ফলে অপরিসীম সম্ভাবনা জেগেছে।
এছাড়াও শিক্ষা সুবিধা পাশাপাশি স্থাপনা অপর্যাপ্ততার কারণে আলীকদম উপজেলায় জালানি পাড়া- কুরুকপাতা ও পোয়ামুহুরী সড়কটি ছিল স্থানীয়দের কাছে অতি গুরুত্বপূর্ন। দীর্ঘদিন সড়কটি না হওয়ার আগে সেসব এলাকা গুলোতে যাতায়াতে একমাত্র যোগাযোগ মাধ্যম ছিল নৌ-পথ। এসব দুর্গম এলাকাগুলোতে যেতে সময় ব্যয় করতে হতো ১ থেকে ২ দিন। অতীতে অপ্রতুলতার কারণে সবচেয়ে বড় সমস্যা শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও যাতায়াত সুবিধা থেকে পিছিয়ে ছিল। আলীকদম-জালানিপাড়া-কুরুকপাতা-পোয়ামুহুরী সড়ক নির্মাণ হওয়ায় সেই চিত্র পাল্টে গিয়ে ওই এলাকা জীবনযাত্রা মান উন্নতি দিকে ধাপিত হবে আশা করছেন স্থানীয়রা। এছাড়া পাহাড়ে বুক চিড়ে এঁকেবেকে বয়ে চলা এই সড়কটি গুরুত্বপূর্ণ স্থানের ৪টি ভিউ পয়েন্ট নির্মাণের ফলে সম্ভাবণা জেগেছে পর্যটনের। পর্যটনকে কেন্দ্র করে প্রসারিত হবে এ অঞ্চলের অর্থনীতিও।
জানা গেছে, ২০১৭ সালে ১৪ ফেব্রুয়ারী আলীকদম- জালানি পাড়া- কুরুকপাতা ও পোয়ামুহুরী সড়ক প্রকল্পটি একনেকে পাশ হয়। সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের অধীনে সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তর তত্ত্বাধানের প্রকল্পটি কাজ দ্রুত সম্পাদনের জন্য প্রকল্পটির বাস্তবায়নের সেনাবাহিনী উপর অর্পিত হয়। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী কোর অব ইঞ্জিনিয়ার্সের ৩৪ ইসিবি অধীনে ১৬ ইঞ্জিনিয়ার কনষ্ট্রাকশন ব্যাটালিয়নের অক্লান্ত পরিশ্রমের মাধ্যমে প্রকল্পটি নির্ধারিত সময়ের পূর্বেই প্রকল্পের প্রায় ৩৫ কোটি কম খরচে ৪৭৪ কোটি ৪০ লাখ টাকার ব্যায়ের সকল কাজের গুনগত মান বজায় রেখে সম্পন্ন করা হয়।
প্রকল্প সুত্রে জানা যায়, ৪৭৪ কোটি ৪০ লাখ টাকার ব্যয়ে নির্মিত প্রকল্পটিতে রয়েছে ৩৭ দশমিক ৫ কিলোমিটার কার্পেটিং রাস্তা, ১০টি ব্রিজ, ১১টি কালভার্ট, ৪টি ভিউ পয়েন্ট নির্মাণ করা হয়। রাস্তার আনুষাঙ্গিক করণ হিসেবে ক্রস ড্রেন, সাইট ড্রেন, রিটেইনিং ওয়াল, আর্থ ওয়াটার ড্যাম, রোড সাইড সহ নির্মাণ করা হয়। এই রাস্তা নির্মাণের ফলে অত্র এলাকার জনগনের আর্থ সামাজিক ও উন্নয়ন সাধীত হবে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার সবচেয়ে দূর্গম ৪নং কুরুকপাতা ইউনিয়নে জনগোষ্ঠীর বসবাসের জনসংখ্যা প্রায় সাড়ে ১১ হাজার পরিবার। জালানিপাড়া-কুরুকপাতা -পোয়ামুহুরী এই সড়কের দুর্গম এলাকার পাহাড়ি জনপদে অন্যান্য সম্প্রদায়ে লোকজন বসবাস করলেও সংখ্যাগরিষ্ঠ দিক দিয়ে বেশিরভাগ ম্রো জনগোষ্ঠীর । ওই এলাকা সবাই ছিল জুম চাষ মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন।
আরো জানা গেছে, আলীকদম উপজেলার মাথাপিছু আয় জাতীয় আয় হতে শতকরা ৩০ ভাগ কম ছিল। শিক্ষা সুবিধা ও স্থাপনার অপর্যাপ্ততার কারণে আলীকদমের দক্ষিণে বসবাসরত উপজাতীয় জনগোষ্ঠীর স্বাক্ষরতার হার খুবই কম। ক্লিনিক, হাসপাতাল ও ডাক্তারের অপ্রতুলতার কারণে এ জনপদের মানুষ স্বাস্থ্যঝুঁকিতে ছিল। কুরুকপাতা ইউনিয়নের সাথে উপজেলা সদরের যোগাযোগ ব্যবস্থা ছিল খুবই নাজুক। নদীপথ ছিল একমাত্র যোগাযোগ মাধ্যম। পাশাপাশি দূর্গম অঞ্চলে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এবং নিরাপত্তা অপারেশন কার্যক্রম পরিচালনায় এ সড়ক নির্মাণ ছিল অতি জরুরী। শুধু তাই নয় দুর্গমতার কারণে ওই এলাকার উৎপাদিত ফসল এক সময় নষ্ট হয়ে যেত। ফলে কৃষক তাদের ন্যায্য মূল্য থেকে বঞ্চিত পড়তে হতো । কিন্ত এখন খুব কম সময়েই কৃষি পণ্য সহজে বহন করে নিয়ে যাচ্ছে বাজারে। সময়মত পৌছে যাওয়াতে কৃষকরা পাচ্ছে নায্য মূল্যে দাম ও। সড়কটি নির্মাণের ফলে সেসব দুর্গম এলাকার বসবাসরত পাহাড়ীর জনগোষ্ঠির জীবনে লেগেছে আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের জোয়ার। যোগাযোগ ব্যবস্থা তৈরী হওয়ার ফলে স্থানীয় ফল-ফলাদী অনায়াসে পৌছে যাচ্ছে শহরে।
ওই এলাকা জন ত্রিপুরা, মেনপং ম্রো, পেনরিং ম্রো সহ কয়েকজন বাসিন্দারা বলেন, সড়কটি না হওয়ার আগে সব কিছু থেকে আমরা বঞ্ছিত ছিলাম। এখন এই সড়কটি হওয়ার পর আমাদের অনেক উপকৃত হয়েছে। এই সড়কের মাধ্যমে যেমন ব্যবসা-বাণিজ্যের চিত্র পাল্টে যাবে। পাশাপাশি দৃষ্টিনন্দন এই সড়কটি ভিউ পয়েন্ট দেখতে বিভিন্ন প্রান্ত থেকে পর্যটকের আনাগোনা বাড়বে। যার মাধ্যমে এই এলাকার মানুষের অর্থনৈতিক উন্নতি হবে।
ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মেনরত ম্রো বলেন, আগে পাহাড়ের জিনিস পত্র নিয়ে হেঁটে যেতে সময় লাগত ১ থেকে ২ দিন। এখন সড়টি হওয়ার পর আলীকদম সদরে যেতে সময় লাগে ১ থেকে ২ ঘন্টা। এই সড়কটি হওয়ার ফলে আমাদের জীবনযাপন এখন অনেক সহজ হয়ে উঠেছে।
আলীকদম উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম বলেন, দুর্গম হাওয়াতে ওই এলাকায় একেবারে যোগাযোগ বিছিন্ন ছিল। কোন অঘটন ঘটলেও তা সহজে খবর পাওয়া বেগ পেতে হতো। এই সড়কটি নির্মাণ হওয়ার ফলে এখন সহজভাবে অনায়াসে পৌছে যেতে পারছি। বর্তমানে ওই এলাকার বাসিন্দাদের জীবনযাত্রা মান অনেকটা পাল্টে যাবে বলে মত দেন।
এ ব্যাপারে ১৬ ইঞ্জিনিয়ার কনস্ট্রাকশন ব্যাটালিয়নের (১৬ ইসিবি) মেজর ও প্রকল্প কর্মকর্তা মোঃ ইশরাকুল হক বলেন, নবনির্মিত আলীকদম-পোয়ামুহুরী সড়ক আলীকদম-জালানিপাড়া- কুরুকপাতা- পোয়ামুহুরী সড়কটি ৩১৭ কিলোমিটারের সীমান্ত সড়কের সাথেও সংযুক্ত হচ্ছে। সড়কটি নির্মাণের ফলে মুরুং, ত্রিপুরাসহ বৃহত্তর করুকপাতা ইউনিয়নে বসবাসরত পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর জীবনে আর্থ-সামজিক উন্নয়ন হবে। এছাড়াও কৃষিজাত পণ্যের বিপনন এবং কৃষি নির্ভর শিল্পোন্নয়ন, স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষাসহ অন্যান্য মৌলিক চাহিদা পূরণে সহায়তা হবে। দেশের ভূখন্ড রক্ষা ও সীমান্তে নিরাপত্তা বৃদ্ধিতেও এটি গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে। সড়কটি এ অঞ্চলের পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর উন্নতির পাশাপাশি সুখী, সমৃদ্ধ, সুষম উন্নয়নের বাংলাদেশ গড়ার পথে এক বড় অর্জন।