কাপ্তাই হ্রদের পানিতে তলিয়ে গেছে রাঙ্গামাটির দৃষ্টিনন্দন পর্যটন ঝুলন্ত ব্রিজ

92

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥
গত কয়েকদিনের ভারী বর্ষণে উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে রাঙ্গামাটির কাপ্তাই হ্রদের পানির উচ্চতা হঠাৎ বেড়ে যাওয়ায় রাঙ্গামাটির দৃষ্টিনন্দন পর্যটনের ঝুলন্ত ব্রিজ পানিতে তলিয়ে গেছে।
সকালে গিয়ে দেখা যায়, কাপ্তাই হ্রদের পাটাতনের ছয় ইঞ্চি পরিমাণ পানির নিচে তলিয়ে গেছে ব্রিজটি। এতে করে বেড়াতে আসা পর্যটকদের পারাপার বন্ধ করে দিয়েছে রাঙ্গামাটি পর্যটন করপোরেশন কর্তৃপক্ষ। আর রাঙ্গামাটিতে বেড়াতে আসা পর্যটকরা ডুবন্ত ব্রিজ দেখে হতাশ হয়ে ফিরে যাচ্ছেন। হতাশা দেখা দিয়েছে স্থানীয় ব্যবসায়ীদের মাঝেও।
পর্যটন কর্পোরেশনের বোট ইজারাদা রমজান আলী ও টিকেট কাউন্টার ম্যান মোঃ সোহেল জানান, ঝুলন্ত ব্রীজটি হ্রদে ডুবে যাওয়া ঝুলন্ত ব্রীজ পারাপারের বন্ধ থাকায় পর্যটক শুন্য হয়ে পড়েছে। পর্যটকবাহী বোট গুলো ঘাটে বসে আছে। যতদিন কাপ্তাই হ্রদের পানি স্বাভাবিক না হয় ততদিন আমাদের ব্যবসা বন্ধ রাখা ছাড়া কোন গতি নেই।
রাঙ্গামাটি পর্যটন করপোরেশনের ব্যবস্থাপক অলোক বিকাশ চাকমা জানান, কাপ্তাই হ্রদের পানি বেড়ে ঝুলন্ত ব্রিজ ডুবে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে যাওয়ায় পর্যটকদের জন্য রোববার (৩ সেপ্টেম্বর) সকাল থেকে ব্রিজের পারাপার বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। গত এক সপ্তাহ ধরে উজান থেকে পাহাড়ি ঢল নামায় কাপ্তাই হ্রদের পানির উচ্চতা দ্রুত বাড়ছে। ইতোমধ্যে পানিতে ডুবে গেছে ঝুলন্ত ব্রিজটি। ফলে পর্যটকদের প্রবেশে অস্থায়ীভাবে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। তবে পর্যটকসহ কৌতুহলী মানুষ সেতু ডুবে যাওয়ার সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারছে। হ্রদের পানি কমে ব্রিজটি ভেসে উঠলে আবার চলাচলে উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে।
৮০’র দশকের দিকে সরকার রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলাকে পর্যটন এলাকা হিসেবে ঘোষণা করে। পরে পর্যটন করপোরেশন পর্যটকদের পারাপারের সুবিধায় দুটি পাহাড়ের মাঝখানে তৈরি করে রাঙ্গামাটির আকর্ষণীয় ঝুলন্ত ব্রিজটি। দেশে-বিদেশে ঝুলন্ত ব্রিজটি ব্যাপক আকারে পরিচিতি পেয়েছে। প্রতি বছর পর্যটন মৌসুমে রাঙ্গামাটির দৃষ্টিনন্দন ঝুলন্ত সেতুটি উপভোগ করতে রাঙ্গামাটিতে আগমন ঘটে প্রচুর পর্যটকের। প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে ঝুলন্ত ব্রিজটি কাপ্তাই হ্রদের পানিতে তলিয়ে যায়। কিন্তু প্রতিবছর ঝুলন্ত ব্রিজটি পানিতে তলিয়ে যাওয়ার সমস্যার স্থায়ী কোনো সমাধান করা হয়নি এখনো।
তাই এই ঝুলন্ত ব্রিজটি প্রতিবছর যাতে কাপ্তাই হ্রদের পানিতে তলিয়ে না যায় তার জন্য নতুন করে সংস্কারের দাবী জানিয়েছে বেড়াতে আসা পর্যটক প্রেমিকরা।