করোনার প্রভাবে বিনোদন কেন্দ্রগুলো পর্যটক শুন্য বিকিকিনি না হওয়ায় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা ভোগান্তিতে

62

কাজী মোশাররফ হোসেন, কাপ্তাইঃ-কাপ্তাই উপজেলায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা রোগী। প্রতিদিন নতুন নুতুন রোগী করোনা শনাক্ত হচ্ছেন। বর্তমানে ১২০ জনেরমত করোনা রোগী রয়েছেন উপজেলার বিভিন্ন এলাকায়। করোনাকালীন সময়ে উপজেলার বিনোদন কেন্দ্র গুলো খোলা থাকলেও এখানে পর্যটকের আনাগোনা নাই বললেই চলে। সারা দিনে হাতে গোনা কয়েকজন পর্যটক হয়তো ঘুরতে আসছেন। আর যারা আসছেন তারা খুব বেশি সময় ধরে অবস্থানও করছেন না। দ্রুত এসে দ্রুতই এলাকা ত্যাগ করছেন তারা।
এদিকে পর্যটকের আশায় বিনোদন কেন্দ্র গুলোতে বিভিন্ন সামগ্রী বিক্রি করতে বসে আছেন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা। কিন্তু পর্যটক না থাকায় এবং যারা আসছেন তারাও কিছু কেনাকাটা না করায় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা সঙ্কটে পড়েছেন। সরেজমিন পরিদর্শনে দেখা গেছে এলাকার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত আনারস, পেঁপে, জাম্বুরা, কলা, ডাব, লেবু, কলা, বরই, আমলকি ইত্যাদি কিনে বিক্রির জন্য বিনোদন কেন্দ্র গুলোর সামনে পসরা সাজিয়ে বসে আছেন। কিন্তু বিক্রি না হওয়ায় তারা মারাত্মক ক্ষতির মুখে পড়েছেন।
উপজেলার অন্যতম বিনোদন কেন্দ্র লেক প্যারাডাইস পিকনিক স্পট এবং জীবতলী লেকশোর পিকনিক স্পটে প্রায় ২০ জন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীকে দেখা গেছে পসরা সাজিয়ে অলস বসে আছেন। আলো চকমা নামক একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী জানান তিনি রাঙ্গামাটি কুটির শিল্প থেকে চাদর, সোয়েটার, মাফলার ইত্যাদিও বিক্রির জন্য কিনে এনেছেন। স্বাভাবিক সময়ে লোকজন ভরপুর থাকতো এসব বিনোদন কেন্দ্রে। তখন তাদের সব মালামাল বিক্রি হয়ে যেত। এখন পর্যটক না থাকায় তাদের মালামাল বিক্রি হচ্ছেনা। যার ফলে ব্যবসায়ীরা চরম ক্ষতির মুখে পড়েছেন। এ ব্যাপারে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা প্রশাসনের আন্তরিক সহযোগিতা প্রত্যাশা করছেন।