রাঙামাটিতে নবগঠিত প্রেসক্লাব বিলুপ্তি ঘোষণা

240

রাঙামাটিতে সাম্প্রতিক সময়ে গঠিত হওয়া রাঙামাটি প্রেসক্লাব নামের সংগঠনটি বিলুপ্তি ঘোষণা করা হয়েছে।
আজ সোমবার সংগঠনের সভাপতি সুশীল প্রসাদ চাকমা এক স্বাক্ষরিত প্রেসবিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে সংগঠনটি বিলুপ্তি ঘোষণা করা হয়।

বিবৃতিতে উল্লেখ্য করেন, বৃহত্তর স্বার্থে রাঙামাটি পার্বত্য জেলার সাংবাদিক সমাজের মধ্যে ঐক্যশক্তি সুদৃঢ় করতে এবং পেশাগত মানোন্নয়নসহ পারস্পরিক আন্তরিকতাভাব সমুন্নত রাখতে রাঙামাটিতে কর্মরত সকল সাংবাদিকদের মধ্যে এক  সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে ফলপ্রসু আলোচনা হয়েছে।

গত ৬ আগষ্ট ২০২১ খ্রিষ্টাব্দ (শুক্রবার) সন্ধ্যায় রাঙামাটি প্রেস ক্লাব সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত আলোচনায় উভয় পক্ষের মধ্যকার সমঝোতার ভিত্তিতে নবগঠিত ‘রাঙামাটি প্রেস ক্লাব’ বিলুপ্তির ঘোষণা দেওয়া হয়। উক্ত সিদ্ধান্ত মতে নবগঠিত ‘রাঙামাটি প্রেস ক্লাব’ আনুষ্ঠানিকভাবে বিলুপ্ত করা হলো।

ওই সভায় রাঙামাটি প্রেস ক্লাবের সভাপতি জনাব সাখাওয়াৎ হোসেন রুবেল ও সাধারণ সম্পাদক জনাব আনোয়ার-আল হকের নেতৃত্বে ক্লাবের অধিকাংশ নেতৃবৃন্দ ও সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।
অপরপক্ষে বিলুপ্ত ঘোষিত রাঙামাটি প্রেস ক্লাবের পক্ষে যারা উপস্থিত ছিলেন, তারা হলেন- ১। সুশীল প্রসাদ চাকমা, সভাপতি  ২। চৌধুরী হারুনুর রশিদ, সহ-সভাপতি  ৩। কামাল উদ্দিন, সহ-সভাপতি ৪। নন্দন দেবনাথ, সাধারণ সম্পাদক  ৫। শান্তিময় চাকমা, যুগ্ম সম্পাদক ৬। হিমেল চাকমা, তথ্য ও প্রচার সম্পাদক  ৭। জিয়াউর রহমান জুয়েল, যুগ্ম সম্পাদক  ৮। এম কামাল উদ্দিন, কোষাধ্যক্ষ  ৯। হেফাজত-উল বারী সবুজ, পরিবশে বিষয়ক সম্পাদক  ১০।  ফাতেমা জান্নাত মুমু, নারী বিষয়ক সম্পাদক  ১১। সাধন বিকাশ চাকমা, নির্বাহী সদস্য ১২। মহুয়া জান্নাত মনি, সদস্য।
বিবৃতিতে আরো বলা হয়, সভায় সার্বিক বিষয়ের পরিপ্রেক্ষিতে সবকিছু বিবেচনা করে একমত পোষণ করা হয় যে-
(ক) বিদ্যমান ঐতিহ্যবাহী ও স্থায়ীত্বশীল রাঙামাটি প্রেস ক্লাবে দীর্ঘদিন ধরে নতুন সদস্য অন্তর্ভূক্তির কার্যক্রম বন্ধ ছিল। এতে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে কর্মরত স্থানীয় সংবাদকর্মীদের মনে ক্ষোভের সঞ্চার হয়।
(খ) এর এক পর্যায়ে ৩০ জানুয়ারি ২০২১ খ্রিষ্টাব্দ মোট ৩৮ সদস্যের সমন্বয়ে এবং ২৫ সদস্যবিশিষ্ট একটি কার্যকরী কমিটি গঠন করে একই নামে আরেকটি ‘রাঙামাটি প্রেস ক্লাব’ গঠন করা হয়। যার মূল লক্ষ্য ছিল, রাঙামাটিতে কর্মরত সকল সংবাদকর্মীদের বিদ্যমান স্থয়ীত্বশীল রাঙামাটি প্রেস ক্লাবে সদস্য পদ পাওয়ার অধিকার প্রতিষ্ঠা করা।
(গ) ইতিমধ্যে প্রথম দফায় ৭ (সাত) জন এবং পরবর্তী দ্বিতীয় দফায় ৯ (নয়) জন সাংবাদিককে সদস্য পদ দিয়েছে, বিদ্যমান স্থয়ীত্বশীল ‘রাঙামাটি প্রেস ক্লাব’। বিষয়টি স্থানীয় সাংবাদিক সমাজের মধ্যে সাফল্যজনকভাবে ইতিবাচক ভূমিকা রাখে।
(ঘ) এ অবস্থায় রাঙামাটিতে কর্মরত সকল সাংবাদিকদের মধ্যে সৌহার্দ্য, সম্প্রীতি, ভ্রাতৃত্বভাব ও সহমর্মিতা পুনঃস্থাপন করে সবার মধ্যে ঐক্যশক্তি সুদৃঢ় করতে এবং সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশ ফিরিয়ে আনা একান্ত প্রয়োজন।
(ঙ) রাঙামাটি প্রেস ক্লাব কর্তৃপক্ষ আশ্বাস দিয়ে বলেন, ক্লাবের সদস্য পদ অন্তর্ভূক্তিকরণ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যে ক্লাবের গঠনতন্ত্র মতে যোগ্যতার ভিত্তিতে প্রথম পর্যায়ে ৭ (সাত) জন এবং পরবর্তীতে আরও ৯ (নয়) জন সাংবাদিককে সদস্য পদ দেওয়া হয়েছে। এ ধারা অব্যাহত থাকবে। পর্যায়ক্রমে যোগ্যতার ভিত্তিতে স্থানীয় সাংবাদিক সবাইকে সদস্য পদ দেওয়া হবে।
(চ) এই মর্মে একমত পোষণ করে সিদ্ধান্তে উপণীত হন যে, সমস্ত ভুল বোঝাবুঝি বা যে কোনো দ্বন্ধ-বিরোধ কিংবা ভেদাভেদ ভুলে রাঙামাটির সকল সাংবাদিকদের মধ্যে একাত্ম, মমত্ব ও আন্তরিকতার সাথে ঐক্যশক্তি সুদৃঢ় করে শান্তি ও সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশ ফিরিয়ে আনার পদক্ষেপ নেওয়া হবে। তাই রাঙামাটিতে আলাদা কোনো প্রেস ক্লাব বিদ্যমান রাখার প্রয়োজন পড়ে না। অতএব রাঙামাটির সকল সাংবাদিক এক ময়দানে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে এবং সৌহার্দ্য ও আন্তরিকপূর্ণ পরিবেশে সহাবস্থানের লক্ষ্যে নবগঠিত ‘রাঙামাটি প্রেস ক্লাব’ বিলুপ্তি ঘোষণা করা হলো।
(ছ) আজ থেকে নবগঠিত রাঙামাটি প্রেস ক্লাবের কোনো রকম কার্যক্রম থাকবে না। এটি নিয়ে অন্য কেউ কোনো কিছু করলে তার সমস্ত দায়ভার তাকে নিতে হবে। প্রয়োজনে যে কোনো উদ্ভব পরিস্থিতি রাঙামাটির সকল সাংবাদিকরা মিলে ঐক্যবদ্ধভাবে সামাল দেওয়া হবে।

(জ) পরিশেষে নবগঠিত ‘রাঙামাটি প্রেস ক্লাবের’ পিকনিক আয়োজনের জন্য বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান হতে যে সমস্ত অনুদান পাওয়া গেছে, সেগুলো গচ্ছিত রয়েছে উল্লেখ করে বিদ্যমান করোনা পরিস্থিতির উত্তরণ হলেই রাঙামাটির সকল সাংবাদিকদের নিয়ে পিকিনিক আয়োজন করার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয়। (প্রেস বিজ্ঞপ্তি)