বঙ্গমাতার জন্মদিন উপলক্ষে দীপংকর তালুকদার এপি’র উদ্যোগে রাঙ্গামাটি কারাগারে উন্নত খাবার বিতরণ

239

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাঙ্গামাটিঃ-খাদ্য মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও রাঙ্গামাটি সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার এমপি বলেছেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে বঙ্গবন্ধুর পাশে থেকে সাহস ও প্রেরণা যুগিয়েছেন বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রাজনৈতিক জীবনের কঠিনতম সময়ে সহযোদ্ধা হয়ে বেগম মুজিব জাতীয় মুক্তি সংগ্রামকে বেগবান করেছেন। তিনি আরো বলেন, বঙ্গমাতা ছিলেন নির্লোভ, নিরহঙ্কারী ও পরোপকারী। পার্থিব বিত্ত-বৈভব বা ক্ষমতার জৌলুস কখনও তাঁকে আকৃষ্ট করতে পারেনি। বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব যে আদর্শ ও দৃষ্টান্ত রেখে গেছেন, তা যুগে যুগে এদেশের নারীদের জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে থাকবে।
তিনি রবিবার (৮ আগষ্ট) সকালে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব এর জন্মদিন উপলক্ষে খাদ্য মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও রাঙ্গামাটি সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার এমপি’র নিজ উদ্যোগে রাঙ্গামাটি জেলা কারাগারে অবস্থানরত আসামী ও কয়েদীর মাঝে উন্নত মানের খাবার বিতরণ করতে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।
এ উপলক্ষে রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মিজানুর রহমানের নির্দেশনায় রাঙ্গামাটির অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এস এইচ এম মাগফুরুল হাসান আব্বাসীর নেতৃত্বে কারা পরিদর্শক দল রাঙ্গামাটি কারাগারে নারী পুরুষ আসামী ও কয়েদীদের সুষ্ঠুভাবে খাবার বিতরণের সময় উপস্থিত ছিলেন।
এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপন্থিত ছিলেন, রাঙ্গামাটি জেল সুপার মতিয়ার রহমান, জেলার মো: বাহারুল ইসলাম, বেসরকারী কারা পরিদর্শক ও রাঙ্গামাটি প্রেসক্লাবের সভাপতি সাখাওয়াৎ হোসেন রুবেল, বেসরকারী কারা পরিদর্শক মনোয়ারা আক্তার জাহান, সহকারী কমিশনার হাসান মোহাম্মদ সোয়াইব, সহকারী কমিশনার মো: আবদুর রহমান প্রমুখ।
উল্লেখ্য, রবিবার (৮ আগষ্ট) রাঙ্গামাটি জেলা কারাগারে মোট আসামী ও কয়েদীর সংখ্যা ছিল ২৪৯ জন। তন্মধ্যে পুরুষ ২৪১ জন এবং নারী ৮ জন। রবিবার বঙ্গমাতার জন্মদিন উপলক্ষে সাংসদ দীপংকর তালুকদার প্রদত্ত এক বেলার উন্নত খাবার তৈরী করেন বাবুর্চি তরিকুল ইসলাম (তিনি বর্তমানে রাঙ্গামাটি কারাগারে অবস্থানরত একজন কয়েদী)। খাবারের মধ্যে ছিল খাসীর মাংস, পোলাও ভাত, ডিম, সালাদ, কোক ইত্যাদি।